আমার কাছে টাকা নেই… সময় এলে বুঝবে: পার্থ

আমার কাছে টাকা নেই… সময় এলে বুঝবে: পার্থ

আজ পার্থ অর্পিতার স্বাস্থ্য পরীক্ষা। জোকা ইএসআই হাসপাতালে স্বাস্থ্য পরীক্ষা। বেলা ১১টার দিকে সিজিও কম্পাউন্ড থেকে ইডি অফিসারদের গাড়ি আসে। কেন্দ্রীয় বাহিনীর কড়া নিরাপত্তায় তাদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। জোকা ইএসআই-এ সিজিও কমপ্লেক্স – প্রায় পুরো ট্রেইলটি একটি সবুজ করিডোরে রূপান্তরিত হয়েছে। লাল আলোতে গাড়ি থামে না। প্রথমে সেন্ট্রাল ফোর্সের গাড়ি, তারপর পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে পরের গাড়িতে, তারপর কেন্দ্রীয় বাহিনী, তারপর অর্পিতা মুখোপাধ্যায়কে পরের গাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। শেষে আবার কেন্দ্রীয় বাহিনীর গাড়ি। গত শুক্রবার অর্পিতা-পার্থকে জোকা ইএসআই হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সাংবাদিকরা অর্পিতার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। গাড়ি থেকে জানালা তুলে দেওয়া হল। কিন্তু এর মাঝেই অর্পিতাকে নির্দিষ্ট প্রশ্নের পর নির্দিষ্ট প্রশ্ন ছুড়ে দেন সাংবাদিকরা।

গাড়িতে বসে এমন প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেননি অর্পিতা। গাড়ি হাসপাতালে পৌঁছতেই কাঁদতে শুরু করেন অর্পিতা। কাঁদতে কাঁদতে গাড়ি থেকে নেমে পড়েন তিনি। তার পায়েও আঘাত লেগেছে। তাকে হাসপাতালে নেওয়ার সময় দৃশ্যত তার পায়ে ছিল। হাসপাতালে ঢুকতেই এই বিস্ফোরক বক্তব্য দেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। পার্থ বলেন, “একটি ষড়যন্ত্রের শিকার…” গ্রেপ্তারের পর তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর দেন দুটি শব্দে।

দ্বিতীয় দিন, রবিবার। ‘যাত্রা’ হাসপাতালে ছিল কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। এদিকে পার্থ চট্টোপাধ্যায় আবার বিস্ফোরণ। ওই দিনই তাকে হুইলচেয়ারে বসিয়ে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। নিরাপত্তা বেষ্টনীর শীর্ষে সাংবাদিকরাও প্রশ্ন তোলেন। “পার্থবাবু, আপনি কোন ষড়যন্ত্রের শিকার? এতেও চুপ থাকেননি সাবেক মন্ত্রী। পার্থর জবাব: “সময় সত্যি বুঝবে…” আবারও বিস্ফোরক পার্থ। তিনি আরও বলেন, “আমার কাছে কোনো টাকা নেই…” আবারও সাংবাদিকরা তাকে জিজ্ঞেস করলেন, “আপনার শরীর কেমন আছে?” বুকে হাত রেখে তার ইঙ্গিতপূর্ণ জবাব, “এটা ঠিক না।” পার্থ চট্টোপাধ্যায় হাসপাতালে ভর্তি। এরপর অর্পিতা মুখোপাধ্যায়কে গাড়ি থেকে বের করে আনা হয়। কাছাকাছি হুইলচেয়ার বসানো হয়েছে। কিন্তু ওই দিনই তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু তাকে দৃশ্যত বিধ্বস্ত দেখাচ্ছিল।

 

 

আরো জানুন:-

আলোচনাটি ধারাবাহিকভাবে ইতিবাচক

পার্থর বিবাহ বিচ্ছেদের পরে তিনি আমার সাথে পরিচিত হয়েছেন

অভিষেকের সাথে দেখা করার পরে এসএসসি চাকরি প্রার্থীরা বলেছেন।

পার্থ দা অসুস্থ হয়ে পড়বেন বলে আশঙ্কা করছেন অর্পিতা

যা হয়েছে তার জন্য পার্থ নিজেই দায়ী, এ আবার কী ষড়যন্ত্র?